আমার আছে জল ও আত্মহত্যা

Amar Acche Jol By Humayun Ahmed

বাসায় এলে সপরিবারে টিভি দেখার ব্যাপারটা সবসময় খুব উপভোগ করি । নাটকে যখন অপূর্ব বড় ছেলের মত দায়িত্ব নেন, আম্মু তখন নানা ভাবে বোঝানোর চেষ্টা করেন যে আমি কোনভাবেই বড় মেয়ে সুলভ কাজ করছি না ! আবার আমার অনুজ মন্তব্য করে বসেন কখনো কখনো, “সুহা আপু, মেহজাবিন এত কাঁদে কেন ?” আজ “আমার আছে জল” দেখতে দেখতে মা বলছিলেন, “মিমের সুইসাইড দেখানো একদম ঠিক হয় নি হুমায়ূন আহমেদের । প্রেম করেছে এটাই অনেক খারাপ কাজ , আবার আত্মহত্যা ?” তখন থেকেই মাথায় ঘুরছিল , আচ্ছা দিলশাদের আত্মহত্যাকে তার বাবা-মা চাইলে কি আটকাতে পারতেন না ?
সমাজবিজ্ঞানী ডুর্খেইম আত্মহত্যা নিয়ে দীর্ঘ কলেবরের একটা বই লিখেছিলেন । সেখানে আত্মহত্যার কারণ হিসেবে সামাজিক নৈরাজ্য সহ নানা বিষয়কে দায়ী করেছিলেন । তবে তার যে ব্যাপারটি আমার সবচেয়ে ভাল লেগেছে, তা হল অন্যান্য চিন্তাবিদদের মত আত্মহত্যা তার কাছে “সামাজিক সমস্যা” ছিল না , ছিল “সামাজিক সত্য” । সমস্যা বললে ঘটনার কারণ থেকে আমরা দূরে চলে আসি বলে আমার ধারণা ।
“আমার আছে জল”-এ দিলশাদ আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেয়, যখন জানতে পারে তার প্রিয় জামিল ভাই আসলে দিলশাদের বদলে তার বড় বোন নিশাতকে ভালোবাসেন । একটা ভুল আমরা প্রায়ই করি, বেশিরভাগ মানুষ কিন্তু প্রেমের জন্যে আত্মহত্যা করেন না, এ সিদ্ধান্ত নেন “প্রেমটা মেনে নেওয়া হবে না এমনটি ভেবে ! ” আমাদের দৃষ্টিভঙ্গিটা এই একটা শব্দচয়ন থেকেই বোঝা যায় ।
সিনেমাটা দেখতে গিয়ে মনে হল, এই যে দিলশাদ জামিল ভাইকে ভালোবেসে ভুল করেছিল ,( প্রধান ভুল হল, জামিল ভাই তাকে ভালোবাসেন কিনা এটাও যে একটা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার,সে বুঝতে পারেনি !) সেটা কেউ তাকে বুঝিয়ে বলে নি ‌। নিশাত এক সময় জামিল ভাইকে ভালোবাসলেও, পরে অন্য একজনকে স্বেচ্ছায় বিয়ে করেন । কিন্তু দিলশাদ যে একটু বেশি আবেগপ্রবণ, সে নিজে সিদ্ধান্ত নিতে নাও পারতে পারে, এটা কেউ বুঝতে পারেন নি । দিলশাদের মা সব কিছু জানতে পেরেও তার স্বামীর কাছ থেকে লুকিয়ে যান, অথচ দু’জন মিলে আলোচনা করলে হয়ত ফলপ্রসু সিদ্ধান্ত আসতেও পারত ! দিলশাদকে বলা হয় সে যেন জামিলের সাথে না মেশে, এক অষ্টাদশী তরুণীকে শুধু নিষেধের জালে কি আটকে রাখা যায় ? ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা তো বলে, যায় না !
আত্মহত্যার মত অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে হলে, ট্যাবুটা আমাদের ভাঙতে হবে, ব্যক্তিগত অভিমত এটাই ।

বইঃ আমার আছে জল Download (PDF)
লেখকঃ হুমায়ুন আহমেদ

লিখেছেনঃ Tasnia Tahsin Shuha

বইয়ের ফেরিওয়ালায় আপনার লেখা প্রকাশ করতে চাইলে এইখানে লেখা জমা দিন।

ইউটিউবে বইয়ের ফেরিওয়ালার বুক রিভিউ পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *