সুনীলের “সেই সময়” পাঠ উপলব্ধি

সেই সময় সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় sei somoy sunil gangopadhyay pdf

সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় নিজেই বলেছেন, “এ কাহিনীর মূল নায়কের নাম সময়।” সমাজবিজ্ঞানে “Social Change” নামে একটা কোর্স আমাদের পাঠ্য ছিল, সেখানে কম বেশি সবাই বাংলা রেঁনেসার কথা পড়েছি । “সেই সময়” উপন্যাসটি সেই বাংলা রেঁনেসার সময়কেই ধরার চেষ্টা করে, আর কে না জানে, কবি যখন কোন ইতিহাস গ্রন্থ লেখেন তখন তা শুধু ইতিহাস হয়েই থাকে না, কবিতাও হয়ে যায় !

“সেই সময়” এ জন্যেই অনন্য ।
যদিও ইতিহাসবেত্তাদের মতে রেঁনেসা এসেছিল আঠারশ পঁচিশের দিকে, সুনীলের উপন্যাসের সময়কাল কিন্তু ১৮৪০-১৮৭০ ! লেখক এখানে প্রথমেই প্রচলিত মতের কিছুটা বিরোধিতা করে বলেছেন, ‘ইয়ং বেঙ্গল’ গোষ্ঠীর আবির্ভাব এ পুনর্জাগরণের প্রভাবক হলেও তার বিকাশ হয়েছিল আরো দু’ তিন দশক পর । “সেই সময়” উপন্যাসটি মূলত ‘নবীনকুমার’ নামে এক ক্ষণজন্মা বাঙালি যুবকের ঘটনাবহুল জীবনের গল্প বলে । সুনীল এখানে ছদ্মনামের আশ্রয় নিলেও বিদ্যোৎসাহিনী সভা, মহাভারতের অনুবাদ ইত্যাদি বিভিন্ন ইতিহাসশ্রয়ী উপাখ্যান আমাদের মনে করিয়ে দেয়, নবীনকুমার “কালীপ্রসন্ন সিংহ” ছাড়া আর কেউ হতেই পারেন না !

শুধু কালীপ্রসন্ন সিংহই নন, এ উপন্যাস একইসাথে মেদিনীপুরের ঈশ্বরচন্দ্র , যশোরের মাইকেল অথবা পোস্টমাস্টার দীনবন্ধু মিত্রের সাথেও আমাদের পথ চলতে শেখায় । কখনো প্রিন্স দ্বারকানাথ তার ইংল্যান্ড জয়ের গল্প শোনান, কখনো ডেভিড হেয়ারের অকাল মৃত্যুতে আমাদের চোখেও জল আসে । ইংল্যান্ডের বীটন সাহেব বাঙালি উচ্চারণে কীভাবে বেথুন সাহেব হয়ে উঠলেন অথবা মাইকেল পত্নী আরিয়েত্তাই যে আমাদের হেনরিয়েটা , “সেই সময়” -এ না গেলে কি আর জানা সম্ভব ? সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় নিজে ইতিহাস ভালোবাসতেন বলেই বোধহয় এতটা শ্রমসাধ্য পরিশ্রম করেছেন, এ আকরগ্রন্থটি রচনায় ।

সেই সময় সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় রিভিউ-sei somoy sunil gangopadhyay pdf

কোন চরিত্রই পুরোপরি সাদা অথবা কালো হন না, তাই মাইকেল যখন অপরিমিত মদ্যপানে তার দুঃসময় নিজেই ডেকে আনেন, আমরাও তার ওপর রেগে যাই । কখনো নবীনকুমারকে ভীষণ ছেলেমানুষ মনে হয়, কখনো বা বিধুশেখর বাবুকে । “সেই সময়” পাঠককে নতুন করে আরো একবার “বর্ণপরিচয়” বা “শর্মিষ্ঠা” পড়ার লোভটাও যে উসকে দেয় না, তাই বা বলি কি করে !

সবশেষে নবীনকুমারকেই একটু উদ্ধৃত করা যাক, মৃত্যুশয্যায় তাঁর আশ্বাসবাণী নিজেদের ব্যর্থতাকেই মনে করায় বারবার !

“. . .খুব বাসনা ছিল পরের শতাব্দীটি দেখে যাবো. . . কতই বা দূর ! সেই এক রাত্রে ঘন ঘন তোপধ্বনির মধ্যে এই শতাব্দীর অবসান হইয়া বিংশ শতাব্দী আসিবে. . . মনশ্চক্ষে যেন দেখিতে পাই. . . তাহা কত আলোকজ্জ্বল. . . কত আনন্দময়. . . .হে অনাগত যুগ, তোমার জয় হউক ! “

বইঃ সেই সময় Download (PDF)
লেখকঃ সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

লিখেছেনঃ Tasnia Tahsin Shuha

বইয়ের ফেরিওয়ালায় আপনার লেখা প্রকাশ করতে চাইলে এইখানে লেখা জমা দিন।

ইউটিউবে বইয়ের ফেরিওয়ালার বুক রিভিউ পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *